ছাগল গরুর ভিটামিন ও মিনারেল ঔষধ

আমরা ছাগল গরুর ভিটামিন মিনারেল ঔষধ সম্পর্কে জানবো। কেননা এসকল ঔষধের মধ্যে অনেকগুলো প্রকারভেদ রয়েছে। কোন ধরনের ভিটামিন কিভাবে আপনার গবাদিপশু তে প্রয়োগ করবেন তা বুঝতে এই লেখাটি আপনাকে সাহায্য করবে। লেখাটি আপনার উপকারে আসছে অবশ্যই কমেন্ট করে যানাবেন।

ছাগল গরুর শরীরে ভিটামিন মিনারেলের প্রয়োজনীয়তা খুবি গুরুত্বপূর্ণ। কোন একটি উপাদানের ঘাটতি থাকলে সেটি পশুর শরীরে প্রভাব ফেলবে। যেমন ধরুন আপনার গাভীর শরীরে সেলিনিয়ামের ঘাটতি আছে তাহলে কি হবে? গাভীর গাভী হিটে আসবে না। এরকম অনেক বিষয় রয়েছে যা খামারিদের যানা দরকার।

কোন কোন ভিটামিন ও মিনারেলের অভাবে কি কি সমস্যা হয় সেটাও জানা দরকার।

গরুর ভিটামিন ও মিনারেল ঔষধ

গরুর ভিটামিন ঔষধ

ভিটামিন গবাদিপশুর শরীরে খুব সামান্য পরিমান দরকার হলেও এর গুরুত্ব অপরিসিম। এর অভাবে রাতকানা, বন্ধ্যাত্ব, রিকেটস, অসটিওম্যালেসিয়া ইত্যাদি রোগ হয়। দেখতে উসকো খুসকো ও দুর্বল হয়। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা হমে যাওয়া সহ সকল প্রকার সমস্যা দেখা দেয়। গরু কাঁচা ঘাস, শাক সব্জি ও ফলমুলের উচ্ছিষ্ট এবং দানাদার খাদ্য থেকে বিভিন্ন ভিটামিন পেয়ে থাকে।

ভিটামিন এ, ডি৩ ও ই

সকল গবাদিপশুর শরীরের সবচেয়ে দরকারী ভিটামিন হলো এ, ডি৩ ও ই। দীর্ঘদিন ভিটামিন-এ এর অভাবে গবাদিপশুর নানাবিধ জটিল ও কোঠিন রোগ হয়ে থাকে। ভিটামিন ডি এর অভাব থাকলে ক্যালসিয়াম ও ফসফরাস বডিতে শোষিত হয় না। ভিটামিন ই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে ও প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। গরুর ভিটামিন ইনজেকশন শরীরে প্রয়োগ করলে দ্রুত ভিটামিনের অভাব পুরন করে।

ঔষধ

ভিটামিন এ ডি ই ইনজেকশন, ওরাল সাসপেনশন, পাওডার ও ট্যাবলেট সকল ফর্মেটেই পাওয়া যায়। তবে লার্জ এনিমেল বা ভিটামিনের অভাব জনিত রোগের চিকিৎসায় গরুর ভিটামিন ইনজেকশন দেওয়ায় ভালো কেননা গরুর ভিটামিন ইনজেকশন দ্রুত রক্তে মিশে যেতে পারে।

  • রোনাসল এডি৩ই (Renasol ad3e injection) ইনজেকশন (রেনাটা)
  • রেনাসল এডি৩ই (Renasol ad3e solution) সলুসন (রেনাটা)

ভিটামিন বি কমপ্লেক্স

ভিটামিন বি১ বি২ বি৬ ও বি১২ এই চারটি দরকারি বি ভিটামিন কে এক সংগে বি কমপ্লেক্স বলে। গবাদিপশুর জন্য ইনজেকশন আর হাঁস মুরগি ও ছোট প্রাণির জন্য লিকুইড ও পাওডার ফর্মে পাওয়া যায়। গরুর শারীরিক দুর্বলতা, অপুষ্টি, ক্ষুধামন্দা ইত্যাতির চিকিৎসায় ভিটামিন বি কমপ্লেক্স মাংসে প্রয়োগ করতে হয়।

  • বি৫০ ভেট (B50 Vet) ইনজেকশন (স্কয়ার)
  • বি কম ভেট (B Com Vet) লিকুইড (স্কয়ার)
  • রেনা বি+সি (Rena B+C) পাওডার (রেনাটা)

ভিটামিন সি

ভিটামিন সি এর অভাব থাকলে গরুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায়। গরু বা ছাগল কাঁচা ঘাস ও ফলমুল ও শাক সবজির উচ্ছিষ্ট অংশ থেকে ভিটামিন সি সহ নানা প্রকার ভিটামিন পেয়ে থাকে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে ও ধকল উপশম করে। উন্নত জাতে গরু বেশি গরম সহ্য করতে পারে না তাই প্রচন্ড গরমের সময় ভিটামিন সি খাওয়ালে গরু স্বস্তি পায়।

  • সিভিট (Cevit Vet) ভেট পাওডার (স্কয়ার)
  • রেনা সি (Rena C Powder) পাওডার (রেনাটা)

গরুর মিনারেল ঔষধ

গরুর শরীরে জিংক ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম, সোডিয়াম, পটাসিয়াম, সহ বিভিন্ন ম্যাক্রো ও মাইক্রো মিনারেলের দরকার হয়। গবাদি পশু এসকল খনিজ উপাদান তার খাদ্য থেকে সংগ্রহ করে। খাদ্যে পর্যাপ্ত মিনারেলের সরবরাহ না থাকলে শরীরের সমস্ত জৈবিক কার্যকলাপ ব্যহত হয় এবং বিভিন্ন অসুস্থ্যতা দেখা দেয়।

ক্যালসিয়াম, ফসফরাস ও ম্যাগনেসিয়াম

গবাদিপশুর শরীরে সে সকল মিনারেল বা খনিজ উপাদান বেশি পরিমানে প্রয়োজন হয় তা হলো ক্যালসিয়াম, ফসফরাস ও ম্যাগনেসিয়াম। গরুর ক্যালসিয়ামের অভাবে হাঁড়ের গঠন মজবুত হয় না এবং দুধ ও মাংসের উৎপাদন কমে যায়। রিকেটস, মিল্ক ফিভার, অসটিওম্যালাসিয়া দেখা দেয়। গরুর বা ছাগলের লোম উঠে যায়। গরু শক্তি হারিয়ে ফেলে।

গরুর এই তিনটি খেনিজ উপাদান এক সাথে ও অন্যান্য সংস্লিষ্ট উপাদান সহযোগে ইনজেকশন. ওরাল সাসপেনশন, ওয়াটার সলিবল পাওডার ও বোলাস আকারে প্রচুর ঔষধ বাজারে আসে। চিকিৎসকের পরামর্শে এসকল ছাগল গরুর ক্যালসিয়াম সিরাপ ও ঔষধ ব্যবহার করতে হবে। যেহেতু এটি পুষ্টি উপাদান সেহেতু আপনি নিজেও উদ্যোগী হয়ে এধরনের পুষ্টি উপাদান বা ফিড সাপ্লিমেন্ট খাদ্যে ব্যবহার করতে পারেন।

সানক্যালভেট (Suncalvet Oral) ওরাল (এলানকো বাংলাদেশ), রেনাক্যাল পি [Renacal P) (রেনাটা), সিপি ভেট (CP Vet) (একমি), ক্যালভিট পি (Calvit P) (স্কয়ার), ক্যালভেট পি Calvet P) (এসিআই) ছাগল গরুর ক্যালসিয়াম সিরাপ ও ওয়াটার সলুবল পাওডার রুপে পাওয়া যায় ব্যবহার করতে পারেন। ইনজেকশন হিসাবে ক্যালডি ম্যাগ (রেনাটা), ম্যাজিক্যাল (এসকেএফ) এ দুটোর বেশ শুনাম আছে।

জিংক সিরাপ

জিংক গবাদিপশু, হাঁস মুরগি তথা সকল পশু পাখির শরীরের অতি দরকারি একটি মিনারেল বা খনিজ উপাদান। ছাগল গরুর জিংক সিরাপ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি, রুচি বৃদ্ধি, লোম ও পালক গজানো, প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। কোরবানীর হাটে গরু তোলার আগে জিংক সিরাপ খাওয়ালে গরু দেখতে সুন্দর হয় ফলে দাম বেশি পাওয়া যায়।

জিস ভেট (Zis Vet) সিরাপ (একমি), জিসাপ ভেট (স্কয়ার)

আয়রন ঔষধ

কৃমি ও নিম্ন মানের খাদ্য ব্যবস্থা থাকলে আয়রনের অভাব হয় এবং গরুর শরীরে রক্ত কনিকা কমে যায়। আয়রন সিরাপ গর্ভবতি ও প্রসব পরবর্তি গাভি কে খাওয়নো খুবই জরুরী। কৃমি মুক্ত করার পর লিভার টনিক ও আয়রন টনিক খাওয়ালে গরুর পারফার্মেন্স দ্বীগুণ বৃদ্ধি পায়। এ ক্ষেত্রে ’ফেরাভেট’’ খাওয়াতে পারেন।

ভিটামিন, মিনারেল, এমাইনো এসিড, মাইক্রো-নিউট্রিয়ান্টস সমৃদ্ধ কিছু পন্য আছে যেগুলো আপনার সুস্থ্য প্রানিতেও ব্যবহার করতে পারেন।

বিভিন্ন কোম্পাণির ডিবি পাওডার যেমন- ক্যালফসটনিক, ভিটামিক্স ডিবি সুপার, রেনাভিট ডিবি ইত্যাদি।

গরুকে ভিটামিন ও মিনারেল প্রিমিক্স খাওয়ানোর কারণ

  • ভিটামিন ও মিনারেল প্রিমিক্স খাদ্যের সাথে মিশিয়ে খাওয়ালে গরুর শরীরের ভিটামিন ও মিনারেলের অভাব পূরণ হয়।
  • গরুর দুধ উৎপাদন বৃদ্ধি পায়।
  • গরুর প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়ে থাকে।
  • গরুর খাদ্য গ্রহণের চাহিদা বৃদ্ধি পায়।
  • তুলনামূলভাবে গরুর খাদ্য হজম শক্তি বেড়ে যায়।
  • গরুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেকাংশে বৃদ্ধি পায়।
  • গরুর মাংস উৎপাদন বেড়ে যায়।

গরুকে ভিটামিন ও মিনারেলের প্রিমিক্স খাওয়ালে গরুর শরীরে রোগের সংক্রমন কমে যায়। বিভিন্ন প্রকার ভিটামিন উপাদান যেমন- vitamin A, Vitamin D, Vitamin C ইত্যাদি বাজারে কিনতে পাওয়া যায়। এ সকল ভিটামিন ও মিনারেল গরুকে খাওয়ালে গরুর স্বাভাবিক পুষ্টি চাহিদা পূরণ হয় পাশাপাশি গরুর দুধ ও মাংস উৎপাদনসহ গরু পালনে সহজেই লাভবান হওয়া যায়।

গবাদিপশুর ভিটামিন বা মিনারেলের অভাব জনিত রোগ

  • মিল্ক ফিবার বা দুগ্ধ জ্বর
  • সাময়ীক বন্ধাত্ব বা সম্পূর্ণ বন্ধাত্ব
  • গর্ভফুল আটকে যাওয়া
  • রক্ত স্বল্পতা
  • মাটি খাওয়া
  • হিটে না আসা
  • বীজ কনসেপ্ট না করা
  • স্বাভাবিক বৃদ্ধি না হওয়া
লেখাটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!