গরুর কিটোসিস রোগ- রোগের কারণ, লক্ষণ ও চিকিৎসা পদ্ধতি

গরুর কিটোসিস রোগ- রোগের কারণ, লক্ষণ ও চিকিৎসা পদ্ধতি। গরুর কিটোসিস রোগ ((ketosis in cattle)) দুগ্ধবতী গাভীর কার্বোহাইড্রেট ও ভোলাটাইল ফ্যাটি এসিডের ত্রুটিপূর্ণ মেটাবলিজমের কারণে সৃষ্ট একটি বিপাকীয় রোগ। আক্রান্ত প্রাণির কিটোনেমিয়া, কিটোনইউরিয়া, হাইপোগ্লাইসেমিয় ও যকৃতের গ্লাইকোজেনের স্বল্পতা এ রোগের বায়োকেমিক্যাল বৈশিষ্ট্য।

কেটোসিস দুগ্ধজাত গবাদি পশুর একটি গুরুত্বপূর্ণ বিপাকীয় রোগ যা রক্তে কেটোন দেহগুলি (বিশেষত β-হাইড্রোক্সিবিউরেট) বৃদ্ধির কারণে সংঘটিত হয়। এটি একটি ডেইরী বা দুগ্ধ ব্যাধি যা সাধারণত দুগ্ধজাত দুগ্ধ উত্পাদন এবং ডেইরী খামারে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। সাধারণত বাচ্চা প্রসবের পর হতে কয়েক সপ্তাহের মধ্যে গরুর কিটোসিস রোগ হয়।

গরুর কিটোসিস রোগ

রোগের কারণ

  1. গাভীর খাবারে কার্বোহাইড্রেটের অভাব হলে কিটোসিস রোগ হয়।
  2. দুগ্ধবতী গাভীকে অনাহারে রাখলে বা প্রয়োজনের তুলনায় কম খাবার দিলে এ রোগ হয়।
  3. নিম্নমানের খাবার খাওয়ালে এ রোগ হয়।
  4. রুমেনের মাইক্রোফ্লোরার পরিবর্তণ বা উপকারী অনুজীব মারা গেলে কিটোসিস হয়।
  5. অতিরিক্ত ধকল এর ফলে এ রোগ সৃষ্ট হয়।

গরুর কিটোসিস রোগের লক্ষণ

  1. ক্রমশ ক্ষুধামন্দা ও দুধ উৎপাদন হ্রাসেএ রোগের প্রধান লক্ষণ।
  2. গরুর খাদ্য গ্রহণে অনিহা দেখা দেয়, স্বাস্থ্য ভেঙ্গে পড়ে ও গাভী অবসাদ গ্রস্থ হয়ে পড়ে।
  3. আক্রান্ত গাভীর শ্বাস-প্রশ্বাস, দুধ ও বাসস্থানের সর্বত্র এসিটোনের মিষ্টি গন্ধ পাওয়া যায়।
  4. গাভীর লালা ঝরা, অস্বাভাবিক চর্বণ ও সব কিছু চাটা ইত্যাদি লক্ষণ প্রকাশ পায়।
  5. কাঁধ ও মধ্যভাগের মাংস পেশীর কাঁপুনি দেখা যায় এবং গাভী ঠিকমতো সুস্থিত হতে পারে না।

প্রতিরোধ ও চিকিৎসা

  • গ্লুকোজ বা ডেক্সট্রোজ সল্যুশন (২৫-৫০%) গাভীর শীরায় ইসজেকশন করলে দ্রুত সুফল পাওয়া যায়।
  • তাছাড়া গ্লুকোকর্টিকোয়েড হরমোন এ রোগের চিকিৎসায় চমৎকার কাজ করে।
  • রুমিনেটর ভেট পাওডার গরুকে খাওয়ানো যেতে পারে।
  • প্রোবায়টিক এবং প্রিবায়টিক যুক্ত ঔষধ খাওয়াতে হবে।

কেটোসিস প্রাপ্তবয়স্ক গবাদি পশুদের একটি সাধারণ রোগ। এটি সাধারণত দুগ্ধের দুধ খাওয়ানোর সময় দুগ্ধ গাভীতে দেখা যায় এবং বেশির ভাগ ধারাবাহিকভাবে গরুর আংশিক অ্যানোরেক্সিয়া এবং হতাশার দ্বারা চিহ্নিত করা হয়। কদাচিৎ, গর্ভকালীন দেরীতে গবাদিপশুগুলিতে এটি দেখা যায়, সেই সময় এটি গর্ভাবস্থার টক্সিমিয়ার সাথে ewes এর সদৃশ হয়ে থাকে (দেখুন Ewes এবং do এ গর্ভাবস্থা টক্সেমিয়া)) অযোগ্যতা ছাড়াও, পিকা, অস্বাভাবিক পরাজয়, সমন্বয় এবং অস্বাভাবিক ছাঁচ, বেলোভিং এবং আগ্রাসন সহ স্নায়বিক কর্মহীনতার লক্ষণ মাঝে মাঝে দেখা যায়। শর্তটি বিশ্বব্যাপী বিতরণে রয়েছে তবে সবচেয়ে সাধারণ যেখানে দুগ্ধ গাভী প্রজনন এবং উচ্চ উত্পাদনের জন্য পরিচালিত হয়।

লেখাটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!