মুরগির ইনফেকশাস ব্রংকাইটিস রোগ (Infectious Bronchitis)

 ইনফেকশাস  ব্রংকাইটিস (infectious bronchitis in chickens)। ইনফেকশাস  ব্রংকাইটিস মোরগ-মুরগির শ্বসনতন্ত্রের একটি মারাত্মক রোগ।  ভাইরাস থেকে এই রোগ সৃষ্টি হয়।  সব বয়সের মোরগ-মুরগি এই রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে তবে বয়স্ক মুরগি অপেক্ষা বাচ্চা মুরগির বেশি আক্রান্ত হয়।

সংক্রামক ব্রঙ্কাইটিস একটি এভিয়ান করোনভাইরাস দ্বারা সৃষ্ট রোগ। এটি একটি ফ্যাট ইনভল্ব আরএনএ ভাইরাস। ভাইরাসের আবরণের পৃষ্ঠে বৈশিষ্ট্যযুক্ত স্পাইক-জাতীয় প্রক্ষেপণ থাকে। ভাইরাল স্পাইক প্রোটিনের তারতম্য ভাইরাসটির একাধিক স্ট্রেনকে জন্ম দেয়, যা অঞ্চলগতভাবে পৃথক হতে পারে।

ভাইরাস দ্রুত সংক্রমণ করে যা শ্বাসকষ্টের কারণ হয়। দূর্বল স্প্রেন সংক্রমণে মৃত্যুর হার সাধারণত কম থাকে; তবে কিছু ভাইরাল স্ট্রেনের কিডনিতে ট্রপিজম রয়েছে যা কিডনিতে ব্যর্থতার কারণে মৃত্যুর কারণ হয়। অন্যান্য রোগজীবাণুগুলির সাথে একত্র করণের মতো জটিলতাগুলিও মৃত্যুহার বাড়িয়ে তুলতে পারে। স্ট্রেন-নির্দিষ্ট টিকাদান এবং কঠোর বায়োসিকিউরিটি অনুশীলনগুলি সংক্রমণ রোধ করতে সাহায্য করে।

মুরগির ইনফেকশাস ব্রংকাইটিস রোগ (Infectious Bronchitis)

ইনফেকশাস ব্রংকাইটিস রোগ পরিচিতি

রোগের নাম ইনফেকশাস  ব্রংকাইটিস (infectious bronchitis in chickens)
রোগের ধরণভাইরাল
জীবাণুর নামএভিয়ান ইনফেকশাস ব্রংকাইটিস ভাইরাস (Avian infectious bronchitis virus)
সংক্রমণপোল্ট্রি
মৃত্যুর হারবাচ্চা- ৫-৯০%
বয়ষ্ক- ৫-১০%
সংক্রমন সময়যেকোন বয়সে।
চিকিৎসানাই
এভিয়ান ইনফেকশাস ব্রংকাইটিস ভাইরাস
এভিয়ান ইনফেকশাস ব্রংকাইটিস ভাইরাস

রোগ ছড়ানোর মাধ্যম

বাতাসের মাধ্যমে এ রোগ বেশি ছড়ায়। আক্রান্ত মোরগ-মুরগির নাক দিয়ে নির্গত তরল পদার্থ এবং পায়খানার সাথে এই রোগের ভাইরাস নির্গত হয়। নির্গত ভাইরাস দিয়ে লেটার, খাদ্য, পানি ইত্যাদি সংক্রমিত হয় এবং সুস্থ মুরগির রোগ ছড়ায়।

রোগের লক্ষণ

  • আক্রান্ত মোরগ-মুরগির নাক ও মুখ দিয়ে পানি পড়ে,কাশি হয়।
  • মুরগির  শ্বাসনালীর অভ্যন্তরীণ আবরণ, ফুসফুসের বায়ু কষে জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত হয়। এবং সুস্থ মুরগির রোগ ছড়ায়।
  • সকালে বা রাতে ঠান্ডায় শ্বাসকষ্ট বেশি দেখা যায়।
  • খাদ্য গ্রহণ কমে যায়, ডিম পাড়া মুরগির ডিম উৎপাদন খুবই কমে যায়।

পোস্টমর্টেম রিপোর্ট

  • ট্রাকিয়া বা শ্বাসনালীতে অতিরিক্ত মিউকাস জমে থাকে।
  • শ্বাসনালীতে লালচে রঙ ধারণ করবে।
  • বৃক্ষ ফুলে যাবে এবং ফ্যাকাশে দেখাবে।

চিকিৎসা ব্যবস্থা বা দমন

এই রোগের কোন চিকিৎসা নেই তবে তৃতীয় পর্যায়ের সংক্রমণ হতে রক্ষা পাওয়ার জন্য এন্টিবায়োটিক জাতীয় ঔষধ দিয়ে চিকিৎসা করালে ভালো ফলাফল পাওয়া যেতে পারে। আক্রান্ত মুরগিকে অধিক প্রোটিন যুক্ত খাদ্য বন্ধ করে দেয়া উচিত।

রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা

সময়মতো এই রোগের বিরুদ্ধে টিকা প্রয়োগ করা উচিত।

ইনফেকশাস ব্রংকাইটিস ভাইরাস বিশ্বব্যাপী উপস্থিত, তবে কেবল মুরগীতেই রোগের কারণ হয়। সংক্রমণ যে কোনও বয়সে সংঘটিত হতে পারে তবে খুব অল্প বয়স্ক প্রাণীর মধ্যে সংক্রমণ মৃত্যুহারের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলতে পারে। অনিচ্ছাকৃত পালের মধ্যে,

100% এর কাছাকাছি রোগব্যাধি হওয়া সাধারণ। স্তর এবং বাড়ির উঠোনের পালে মাইকোপ্লাজমা (এম. গ্যালিসেপটিকাম বা এম. সিনোভিয়া) এবং সুবিধাবাদী ব্যাকটিরিয়া (ই কোলি) এর সাথে মিশ্রিত সংক্রমণ হওয়া অস্বাভাবিক কিছু নয়, যা রোগের তীব্রতা বৃদ্ধি করে।

লেখাটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন।

Leave a Comment

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!